নাম তার জ্লাতান ইব্রাহিমোভিচ

The name is “Zlatan Ibrahimović”

১৯৮১ সালের ৩ অক্টোবর সুইডেন এর মালমো শহরে এই মহামানবের জন্ম। তাঁর বাবা হচ্ছেন বসনিয়ান এবং মা হচ্ছেন ক্রোয়েশিয়ান! শৈশবে তিনি ছিলেন একজন বাইসাইকেল চোর। একজন পেশাদার ফুটবল তারকা হয়ে উঠতে তাঁকে অনেক কাঠখোর পুড়াতে হয়েছে।

তাঁর পেশাদার ক্যারিয়ারের শুরু হয় জন্মস্থান মালমো ফুটবল ক্লাব থেকে। ১৯৯৬ সালে মালমো ক্লাবের সাথে প্রথম চুক্তি সই করেন। ১৯৯৯ সালে যখন ক্লাবটির সিনিয়র দলে জয়েন করেন তখন ক্লাবটি ২য় বিভাগে খেলতো! তাঁর সহায়তায়ই ক্লাবটিকে ১ম বিভাগে উঠতে সক্ষম হয়েছে! এই ক্লাবের হয়ে তিনি ৪৭ ম্যাচে ১৮ টি গোল করেছেন। ২০০২ সালের ২২ মার্চে তিনি আর্সেনালকে নাকচ করে আয়াক্সে যোগদান করেন। আয়াক্সের হয়ে তিনি ১১০ ম্যাচে ৪৮ গোল করে ২টি লীগ শিরোপাসহ মোট ৪টি কাপ জিতেন।

২০০৪ সালের ৩১ আগষ্টে ১৬ মিলিয়ন ইউরোতে তিনি আয়াক্স থেকে জুভেন্টাসে যোগদান করেন। জুভেন্টাস ইব্রার জন্য রিয়াল মাদ্রিদ হতে আসা ৭০ মিলিয়ন ইউরোর বিড নাকচ করে। দুর্ভাগ্যবশত ৯২ ম্যাচে মাত্র ২৬ গোল দিয়ে এই ক্লাবের হয়ে কোনো শিরোপাই জিততে পারেনি! ২০০৬ সালে জুভেন্টাস যখন ২য় বিভাগে নেমে আসে, ২৪.৮ মিলিয়ন ইউরোতে ৪ বছরের চুক্তিতে ইব্রা তাঁর যৌবনে সাপোর্ট করা ইন্টার মিলানে যোগ দেন। এই ক্লাবের হয়ে তাঁর সাফল্য অনেকটা হিংসনীয়! ইন্টারের হয়ে তিনি ১১৭ ম্যাচে ৬৬ গোল করে টানা ৩টি লীগ শিরোপাসহ মোট ৫টি ট্রফি অর্জন করেন!

২০০৯ সালের ২৩ জুলাইয়ে তখনকার সময়ের রেকর্ড পরিমাণ ৬৯.৫ মিলিয়ন ইউরোতে ৫ বছরের চুক্তিতে ৬০ হাজার দর্শকের উপস্থিতিতে ইব্রা তাঁর স্বপ্নের ক্লাব বার্সেলোনায় যোগ দেন। কিন্তু কোচ এর সাথে ভুল বুঝাবুঝির কারণে মাত্র ৪৬ ম্যচে ২২ গোল করে ১টি লীগ শিরোপাসহ ঊয়েফা সুপার কাপ এবং ফিফা ক্লাব বিশ্বকাপ সহ মোট ৪টি ট্রফি অর্জন করেন। ২০১০ সালে ইব্রা লোনে এসি মিলানে যোগ দেন এবং ২৪ মিলিয়ন ইউরোতে ২০১১ সালে ৪ বছরের চুক্তি সম্পন্ন করেন। মিলানের হয়ে ইব্রা ৮৫ ম্যাচে ৫৬ গোল করে ১টি লীগ শিরোপা সহ মোট ২টি ট্রফি অর্জন করেন।

২০১২ সালের ১৭ জুলাই পিএসজি ২০ মিলিয়ন ইউরোতে ইব্রাকে দলে ভেড়ান যা ইব্রাকে সবচেয়ে দামী ফুটবলারে পরিণত করে। এই ক্লাবে এসে ইব্রা নিজেকে এক অন্য চূড়ায় নিয়ে যায়। ১ম মৌসুমেই ৩৪ ম্যচে ৩০ গোল করে ১৯৯৪ সালের পর পিএসজিকে লীগ শিরোপা জিততে সাহায্য করে। পিএসজি’র হয়ে মোট ১৮০ ম্যাচে ১৫৬ গোল করে টানা ৪টি লীগ শিরোপাসহ মোট ১২টি ট্রফি নিজের ঝুলিতে তুলেন।

২০১৬ সালে একজন ফ্রী এজেন্ট হয়ে নতুনত্বের জন্যে ইব্রা ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে যোগ দেন। এখানে এসে পেয়ে যান সবচেয়ে প্রিয় কোচকেও! লীগ জিততে না পারলেও ৪৬ ম্যাচে ক্লাব সর্বোচ্চ ২৮ গোল করে উয়েফা ইউরোপা লীগ সহ মোট ৩টি ট্রফি অর্জন করেন!

বর্তমানে ইনজুরি থেকে ফিরে এসে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড এর সাথে চুক্তি নবায়ন করেছেন।